দু’ধ বিক্রি করেই মাসে আয় ৪০ হাজার

এই ব্যবসা থেকে উপার্জিত অর্থে ২০১৩ সালে স্বা’মী-স্ত্রী একস’ঙ্গে হজ পালন করেছেন কবিরুল….

চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জের মো. কবিরুল ইসলাম কবির (৬৯) দু’ধ বিক্রি করে মাসে আয় করেন ৩০-৪০ হাজার টাকা। উপজে’লার মানুষ ‘কবির ঘোষ’ নামেই তাকে সবাই চেনে। তিনি উপজে’লার ছত্রাজিতপুর ইউনিয়নের বহালাবাড়ী বাবা মাজেদ আলীর ছেলে।

বাবা মাজেদও ছিলেন দু’ধ ব্যবসায়ী। পরিবারের অভাব-অনটনের কারণে পড়ালেখা বাদ দিয়ে মাত্র ১৪ বছর ব’য়সেই কবিরুলকে নিতে হয় সংসারের দায়িত্ব। সেই থেকে তিনি দু’ধ বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করছেন।

কবির ঘোষ এখন ব্যাটারিচালিত মোটরসাইকেল নিয়ে বাড়ি বাড়ি দিয়ে দু’ধ সংগ্রহ করে হাট-বাজারসহ বিভিন্ন বাড়িতে সরবরাহ করছেন। তার পাঁচ সদস্যের পরিবারে স্ত্রী ছাড়াও তিন ছেলে রয়েছে। বড়ছেলে কাপড় ব্যবসায়ী, ছোটছেলে প্রবাসী আর মেজছেলে বাবার পেশাতেই রয়েছেন।

কবিরুল ইসলাম বলেন, ‘আমার পড়ালেখার খরচ চা’লানোর মতো পরিবারের সামর্থ্য ছিল না। যে কারণেই বেছে নিতে হয় উপার্জনের পথ। তখন থেকেই দু’ধের ব্যবসা করছি। আয় রোজগার কম হলেও বদলাইনি কর্মজীবনের শুরুর এই গোয়াল পেশা।’

এই ব্যবসা থেকে উপার্জিত অর্থে ২০১৩ সালে স্বা’মী-স্ত্রী একস’ঙ্গে হজ পালন করেছেন কবিরুল।

দীর্ঘদিন বাইসাইকেল চে’পে দু’ধ সরবরাহ করলেও বর্তমানে মানুষের জীবনমান উন্নয়নের স’ঙ্গে তিনিও বদলে ফে’লেন তার চলাচলের বাহন। ২০ হাজার টাকা দিয়ে কেনেন ইজিবাইকের ব্যাটারিচালিত মোটরসাইকেল। প্রতিদিন তিন থেকে চার মণ দু’ধ সংগ্রহ করে বিক্রি করছেন।

শিবগঞ্জ বাজারের দোকানি রিকো জানান, ১০ বছর ধরে কবিরুলের কাছ থেকে দু’ধ নিয়ে তিনি মিষ্টি জাতীয় খাবার তৈরি করেন। বর্তমানে রমজান মাস চলায় বেচাকেনা কমে গেছে। তবে কবিরুলের দু’ধে কোনো দিন ভে’জাল ধরা

পড়েনি। তার দু’ধের তৈরি খাবার দীর্ঘসময় রাখা যায়। সৎভাবেই দু’ধের ব্যবসা করে সংসারের খরচ চালান তিনি।কবিরুল ইসলাম বলেন, যতদিন সুস্থ থাকবেন ততদিন এই ব্যবসা চা’লিয়ে যাবেন।