হাতির পিঠে চড়ে বিয়ে করতে এসে পালিয়ে গেলেন বর!

হাতির পিঠে চ’ড়ে বিয়ের আসরে পৌছালেও কনেকে নিয়ে হাতির পিঠে তুলে নিজ বাড়িতে আসতে পারেননি বর। কনের বয়স আঠারোর নিচে হওয়ায় পুলিশ আসার খবরে বিয়ে বাড়ি ছেড়ে প’লা’য়ন করে সবাই।

পরে হাতি নিয়ে মা’হুত ফিরে আসে সার্কাসে। ফুলবাড়ি থানা পুলিশ জানায়, বা’ল্য বিয়ের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে কাউকে পাওয়া যায়নি। পুলিশ যাওয়ার আগেই বর-কনে এবং বিয়ে বাড়ির সবাই স’ট’কে পড়ে। তবে স্থানীয়রা জানান, পুলিশ পৌঁছার আগেই বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হয়।ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার (১২ ফেব্রুয়ারি) কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার ভাঙামো’ড় ইউনিয়নের আটিয়াবাড়ী গ্রামে। ওই গ্রামের গরুর দালাল দুলাল মিয়ার মেয়ে আদুরী আক্তার (১৬) দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী।

বিয়ে ঠিক হয় পার্শ্ববর্তী উপজেলা নাগেশ্বরীর নেওয়াশি ইউনিয়নের কৃষক ব’দ্ধু খানের ছেলে নির্মাণশ্রমিক সম্রাটের সাথে। সম্রাট বর সেজে সার্কাসে একটি হাতি ভাড়া নিয়ে তার পিঠে চড়ে বিয়ের উদ্দেশে রওনা দেয়। এসময় হাতির পিঠে বরকে দেখে পথচারী ও গ্রামবাসী অ’বা’ক হয়। বরকে বহনকারী হাতিটি ফুলবাড়ী সদর ইউনিয়নের খরিবাড়ী বাজারের ভেতর দিয়ে বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে কনের বাড়িতে যাওয়ার সময় উৎসুক জনতা বি’স্মি’ত হয়। এসময় অনেকে হাতির পিঠে চেপে বসা বরের ছবি তুলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে পোস্ট দেয়।

ঘটনাটি দ্রুত জানাজানি হয়। পরে স্থানীয়রা খোঁজ নিয়ে জানতে পারে সম্রাটের কনের বয়স ১৬ বছর। সে রাবাইটারী এসবি বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্রী। এলাকায় বাল্য বিয়ে হচ্ছে দেখে পুলিশে খবর দেয় তারা। এদিকে পুলিশ আশার আনাগোনায় তা’ড়াহু’ড়ো করে বিয়ে সেরে বিয়ে বাড়ি থেকে স’টকে পড়ে বর ও কনে পক্ষ।কনের দুলাভাই হাফিজুল ইসলাম জানান, ফুলবাড়ীর বড়ভিটা কলেজ মাঠে আয়োজিত স্থানীয় একটি সার্কাসের হাতি ১৫ হাজার টাকায় ভাড়া করে তার পিঠে চড়ে বিয়ে করতে আসে সম্রাট। কনে দশম শ্রেণির ছাত্রী।

মেয়ের বয়স কম হওয়ায় পুলিশ আসার খবরে সবাই বাড়ি থেকে স’ট’কে পড়ে। এসময় সে নিজেও স’রে পড়েন। স্থানীয়রা জানান, ঘটনাস্থলে পুলিশ পৌঁছে কাউকে না পেয়ে ফিরে যায়। এসময় তারা বিয়ে বাড়িতে ফে’লে যাওয়া খাবার ছড়িয়ে ছি’টি’য়ে থাকতে দেখেন।

প্রতিবেশি মানিক মিয়া (৪৫) ও আমিনুল ইসলাম (৪২) জানান, জীবনে এই প্রথম দেখলাম আমার এলাকায় হাতির পিঠে চড়ে বর বিয়ে করতে এসেছে। মেয়ের বয়স কম হওয়ায় বর কনেকে হাতির পিঠে চড়ে বাড়িতে নিয়ে যেতে পারলো না। পুলিশের ভ’য়ে রাতের অ’ন্ধকা’রে স’ট’কে পড়েছে তারা।ভা’ঙামো’ড় ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. লুৎফর রহমান বাবু বা’ল্যবিয়ের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, হাতির পিঠে চরে আসা বর সম্রাটের সাথে নাবালিকা মেয়ের বিয়ে হচ্ছে এমন সংবাদে গ্রাম পুলিশকে বিয়ে বাড়ি পাঠিয়ে ঘটনার সত্যতা পাই।

পরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে (ইউএনও) জানালে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো পাঠায়। তবে পুলিশ আসার খবরে বর ও কনেপক্ষ দ্রুত বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সেড়ে বিয়ে বাড়ি বাড়ি ত্যাগ করে। ফুলবাড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ তৌহিদুর রহমান জানান, বা’ল্যবিয়ে হচ্ছে এমন সংবাদে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠাই। তবে সেখানে কাউকে পাওয়া যায়নি। বিয়ের আনুষ্ঠানিকতাও দেখা যায়নি।