ভ্যাকসিন নেওয়ার বয়সসীমা ২৫ বছর নির্ধারণ

২৫ বছর বা তার বেশি বয়সিরা এখন থেকে কোভিড-১৯ এর ভ্যাকসিন নিতে পারবেন।

কোভিড-১৯ এর ভ্যাকসিন নিতে নিবন্ধনের জন্য সুরক্ষা অ্যাপে এই বয়সসীমা ২৫ বছর ও তদূর্ধ্ব করা হয়েছে।

২৯ জুলাই বৃহস্পতিবার করোনার ভ্যাকসিন নিবন্ধনের সুরক্ষা অ্যাপে নিবন্ধন করতে গিয়ে দেখা যায়, ২৫ বছর ও এর বেশি যেকোনো বয়সি বাংলাদেশি করোনার টিকা নেওয়ার জন্য আবেদন করতে পারছেন।

দেশে গত ৭ ফেব্রুয়ারি গণটিকাদান কার্যক্রম শুরু হয়।

এর পরের দিন করোনার টিকার জন্য নিববন্ধনের জন্য ৪০ বছর বয়সসীমা নির্ধারণ করে সরকার।

সেদিন দুপুরে সচিবালয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই নির্দেশনা দেন।

এর আগে ৫৫ বছর বয়সীদের টিকার জন্য নিবন্ধন করার অনুমোদন দেওয়া হয়েছিল।

এরপর ধীরে ধীরে টিকা নেওয়ার বয়সসীমা কমিয়ে আনা হয়।

এদিকে অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারে দেশে দেশে গণটিকা দান কর্মসূচিতে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিচ্ছে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ)।

সংস্থাটি বলছে, বাংলাদেশের অর্থনীতিতে প্রবৃদ্ধি ধরে রাখতে হলে প্রতিদিন ছয় লাখের বেশি মানুষকে টিকা দিতে হবে।

এ কার্যক্রম বাস্তবায়ন করতে পারলেই ডিসেম্বরের মধ্যে দেশের ৪০ শতাংশ মানুষ টিকার আওতায় আসবে।

আইএমএফের ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক আউটলুক আপডেটে এ তথ্য উঠে এসেছে।

প্রতিবেদনটি মঙ্গলবার রাতে প্রকাশ করা হয়।

এতে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের ৪০ শতাংশ জনগোষ্ঠীকে টিকার আওতায় আনতে প্রতিদিন শূন্য দশমিক ৩৬ শতাংশ মানুষকে টিকা দিতে হবে।

আইএমএফের এ হিসাব অনুযায়ী প্রতিদিন ছয় লাখ আট হাজার ৭৯৬ জন মানুষকে টিকা দিতে হবে।