মে’য়েদের স্ত’নের আ’কৃতি ন’ষ্ট হবার জন্য দায়ী যে ৬টি বদ অ’ভ্যাস

একদমই পানি পান করতে ভালো লাগে না? জেনে রাখু’ন, কম পানি পান করলে কেবল আপনার স্বা’স্থ্যই খা’রাপ হবে না, সেইসাথে হবে চ’রম সৌন্দর্য হানি। হ্যাঁ, মুখের তো বটেই, সাথে সৌন্দর্য হারাবে আপনার স্ত’নও।

বক্ষযুগলকে সুন্দর রাখতে না’রীদের চেষ্টার অন্ত নেই, অথচ প্রতিনিয়ত তাঁদেরই কিছু ভু’লে ক্রমশ সৌন্দর্য হারাচ্ছে শ’রীরের এই অ’ঙ্গটি। জেনে নিন ৬টি এমন ভু’লের কথা, যেগুলোর ফলে আপনার স্ত’নে পড়ছে ব’য়সের ছাপ ও ন’ষ্ট হচ্ছে প্রাকৃতিক আকৃতি ও সৌন্দর্য।

একটি বড় কারণ ব্রা :২০১৩ সালে প্রকাশিত একটি রিসার্চে বলা হয়, যারা প্রতিনিয়ত ব্রা পড়ে থাকেন তাঁদের তুলনায় যেসব না’রীরা কখনোই ব্রা পরিধান করেন নি, তাঁদের স্ত’নের আকৃতি অনেক বপ’য়স র্যন্তও সুন্দর থাকে।

অপর আরেকটি রিসার্চে দেখা যায় যে ভু’ল মাপের ব্রা পরিধান দ্রু’ত ন’ষ্ট করে ফে’লে আপনার স্ত’নের আকৃতি। ব্রা যদি পরিধান করতেই হয়, তবে সেটি হতে হবে সঠিক মাপের। খুব বেশী টাইট বা খুব ঢিলেঢালা ব্রা, দুটোই স্বা’স্থ্যের জন্য ভালো নয়।

আপনি পর্যা’প্ত পানি পান করেন না : পানি হচ্ছে পৃথিবীর সবচাইতে জাদুকরী পানীয়। পর্যা’প্ত পানি পান না করলে ক্রমশ ব’য়সের ছাপ পড়ে আপনার ত্বকে এবং ঝুলে যেতে থাকে ত্বক সময়ের অনেক আগেই। এবং হ্যাঁ, শুধু মুখের নয়, সম্পূর্ণ শ’রীর তথা স্ত’নের ত্বকেও এর প্রভাব দেখা যায় অত্যন্ত বেশী।

সূর্যরশ্মি হতে রক্ষা করেন না : সংক্ষি’প্ত পোশাক কিংবা পা’তলা ফেব্রিক পরতে ভালোবাসেন? জেনে রাখু’ন, প্রখর সূর্যরশ্মি আপনার মুখের ত্বকের পাশাপাশি সম্পূর্ণ ত্বকেরই ক্ষ’তি করে। পোশাকে ঢাকা থাকলেও সূর্যের রশ্মি আপনার দেখা পছায় ঠিকই,

তাই সানস্ক্রিন ব্যবহার করতে ভু’লবেন না। বিশেষ করে স্ত’নের নরম ত্বকে। সূর্যের প্রখর উত্তাপ ব’য়স বৃ’দ্ধির প্রক্রিয়াকে অনেক ত্বরান্বিত করে দেয়।

আপনি ধূমপান করেন: ধূমপান মানবদে’হের জন্য একটি অভিশাপের নাম এবং না’রীদের ক্ষেত্রে ক্ষয়ক্ষ’তির পরিমাণ পুরু’ষের চাইতে অনেকটাই বেশী।

ধূমপান আপনার ত্বকের ইলাসটিনকে ন’ষ্ট করে ফে’লে, যা ত্বকে টানটান ভাব ও তারুণ্য ধরে রাখে। ফলে আপনাকে দেখায় অনেক বেশী ব’য়স্ক। ধূমপায়ী না’রীদের স্ত’নের আকৃতি ও সৌন্দর্য দ্রু’ত ন’ষ্ট হয়ে যায়।

আপনার ওজন নি’য়ন্ত্রণে নেই, খুব দ্রু’ত বাড়ে-কমে ওজন কমানো ভালো, তবে ওজন কম্লে সবার আগে প্রভাব আপনার স্ত’নে পড়ে। কেননা স্ত’ন তৈরি মূ’লত ফ্যাট সেল দিয়ে, তাই ওজন কমলে প্রথমেই স্ত’নে এর প্রভাব দেখা যায়।

আপনি যখন বেশী মো’টা থাকেন, ত্বকে স্ট্রেচ হতে হতে ইলাসটিসিটি হা’রিয়ে ফে’লে পরে পরবর্তীতে আপনি যখন স্লিম হয়ে যায়, তখন স্ত’ন ঝুলে যায়।

দ্রু’ত ওজন না কমিয়ে ধীরে সুস্থে কমাতে হবে এবং ওজন খুব দ্রু’ত ওঠানামা করতে দেয়া যাবে না। অল্প অল্প করে ওজন কমালে স্ত’নের আকৃতি অনেকটাই কম ন’ষ্ট হবে।