আক্ষেপ নিয়েই চলে গেলেন এটিএম শামসুজ্জামান

তার ইচ্ছা ছিল লেখক হওয়ার। কিন্তু বাবা চেয়েছিলেন উকিল বানাতে। অ’ভিনয় শুরুর পর বাবা নুরুজ্জামান তাকে বাড়ি থেকেই বের করে দিয়েছিলেন। তখন পাশের গলির এক বাসায় থাকতেন তিনি।

বলছিলাম কিংবদন্তি অ’ভিনেতা এটিএম শামসুজ্জামানের কথা। চলচ্চিত্রে অ’ভিনয় করে যিনি পরিচিতি পেয়েছেন সর্বত্র।সাংবাদিক রণেশ দাসগুপ্তকে লেখালেখির গুরু মানতেন এটিএম শামসুজ্জামান। লেখা শেষ করেই দেখাতেন তাকে। ক্যারিয়ারের শুরু দিকে নাট’কের ‘প্রমট’ করতেন তিনি। পেতেন ২০ টাকা। বাবা বাড়ি থেকে বের করে দেওয়ায় সূত্রাপুরের একটি হোটেলে তিন বেলা খাওয়াদাওয়া করতেন।

ছোটবেলা থেকেই সিনেমা’র পোকা ছিলেন এটিএম শামসুজ্জামান। প্রথম সিনেমা দেখেছিলেন মায়ের সঙ্গে, নিউ পিকচার হাউসে। মায়ের সঙ্গে সিনেমা দেখতে দেখতেই অ’ভিনয়ের প্রতি দুর্বলতা তৈরি হয়েছিল। সেই থেকেই অ’ভিনয়ে আসা। জীবনের শেষ মুহূর্তেও অ’ভিনয় করতে চেয়েছিলেন তিনি।