ব্যাগ ভর্তি সোনা ও ২০ লক্ষ টাকা মালিক কে ফিরিয়ে দিলেন অটো চালক

বলা হয়েছে অ’সাধু পথে রোজগার করার রুটি কখনো হ’জম হয়না। উপরওয়ালা ঠিক তার হিসাব সুদে-আসলে নিয়ে নেন। অ’তএব সর্বদা সৎ ‘হতে হবে। আপনি এখন সদ্ভাবে জীবন-যাপন করবেন তখন আপনার সমাজেও শ্র’দ্ধা থাকবে। সম্মান এর অর্থ দিয়ে এটি উপার্জন করা যায় না।

চেন্নাইতে বাস করা কোন অটোচালক এর ক্ষেত্রে একই ধারণাটি ঘটতে পারে যখন সেটার জাতির কাছে গহনা ভর্তি একটি ব্যাগ ফিরিয়ে দেয়। আসলে শ্রবণ কুমা’র নামে এক ব্যক্তি চেন্নাইতে একটি গাড়ি চালান। একদিন কোন এক যাত্রী দু’র্ঘটনাক্রমে তার অটোতে একটি গয়না ভর্তি ব্যাগ ভুল করে রেখে যান।

এত গয়না দেখার পরেও অটোচালক ব্যক্তির অ’সততা জাগ্রতহয়না। সে আন্তরিকভাবে সে ব্যাক্তি থা’নায় জমা দেয়। বলা হচ্ছে সেই ব্যক্তিকে প্রায় কুড়ি লক্ষ টাকার গয়না ছিল এবং এই ব্যাগটি পল ব্রাইট নামে এক ব্যক্তির।

তিনি তার আ’ত্মীয়ের বিয়েতে যোগ দিতে যাচ্ছিলেন। তার কাছে প্রচুর ব্যাক ছিল এবং তিনি নিয়মিত ফোনে কথা বলছিলেন, এমন পরিস্থিতিতে তার গয়নার ব্যাগ অটোতে রেখে তিনি ভুলে যান। কিছুক্ষণ বাদে যখন তার ব্যক্তির কথা মনে পরল তখন তিনি ঘাবড়ে যান এবং ক্রুম্পেট থা’নায় একটি প্রতিবেদন লিখতে যান এবং পু’লিশও তৎক্ষণাৎ ব্যবস্থা নেওয়া শুরু করেন এবং তাকে আশ্বস্ত করেন যে সিসিটিভি ফুটেজ থেকে তারা অটোচালককে খুঁজে বের করবেন।

কিন্তু তারপরে তারা জানতে পারে যে অটোচালক ইতিমধ্যেই তার ব্যাগ টি পু’লিশকে ফিরিয়ে দিয়েছে। এটি শুনে বল ব্রাইট খুব খুশি হয়েছিলেন এবং অটোচালককে ধন্যবাদ জানান। অন্যদিকে অটো চালকের সততা নিয়ে চেন্নাই পু’লিশ তাকে ফুলের তোড়া উপহার দিয়ে সম্মানিত করেছে এবং এই খবর যখন সোশ্যাল-মিডিয়ায়-ভাই’রাল হয় তখন সবাই অটোচালক ব্যক্তির প্রশংসা করতে শুরু করে।

লোকেরা বলতে শুরু করে যে সবাইকে শ্রাবণ কুমা’রের মতন সৎ ‘হতে হবে। তাহলে এই পৃথিবী জীবনযাত্রার উপযোগীহয়ে উঠবে। আপনি কি পরিমাণ অর্থ উপার্জন করবে তা প্রয়োজনীয় নয় তবে আপনি কতটা সত্তা অবশ্যই গু’রুত্বপূর্ণ।যাইহোক পুরো বি’ষয়টি স’ম্প’র্কে আপনার কি মতামত? আপনি কি কখনো এরকম সৎ গাড়িচালকের মুখোমুখি হয়েছেন? আপনার অ’ভিজ্ঞতা আমা’দের সাথে শেয়ার করুন।