অষ্টম শ্রেণি পাস ২১ বছরের দিপু যেভাবে কোটিপতি!

অষ্টম শ্রেণি পাস মো. আশরাফুল ই’সলাম দিপু (২১) নিজেকে প’রিচয় দেন জাতীয় গো’য়েন্দা সংস্থার (এনএসআই) পরিচালক হিসেবে। এর বাইরে সুযোগ বুঝে কখনো সরকারের শীর্ষ কর্মক’র্তা, কখনো ব্যবসায়ী আবার কখনো বনে যান ক্ষ’মতাসীন দলের ছাত্রনেতা।

সুবিধামতো ভিন্ন ভিন্ন পরিচয় দিয়ে আসা এই যুবক চড়েন দামী গাড়িতে। স্কুলের গণ্ডি পার হতে না পারলেও রপ্ত করেছেন চূড়ান্ত প্র’তারণার নানা কৌশল। চাকরি দেওয়ার নামে বিভিন্ন জনের কাছ থেকে হাতিয়ে নিয়েছেন লাখ লাখ টাকা।

শনিবার রাজধানীর পল্লবী থা’নার সেকশন-১১ এলাকায় অ’ভিযান চালিয়ে এই প্র’তারককে গ্রে’ফতার করে গো’য়েন্দা পুলিশের (ডিবি) সাইবার অ্যান্ড স্পেশাল ক্রা’ইম বিভাগের ওয়েব বেইজড ক্রা’ইম ইনভে’স্টিগেশন টিম।

এ সময় তার কাছ থেকে ৮টি মোবাইল, ১০টি সিম কার্ড, ডাচ্ বাংলা ব্যাংকের মাস্টার কার্ড ১টি, ব্যাংক এশিয়ার চেক বই ১টি, সরকারি গেজেটের প্রিন্টেড কপি, ৩টি ভু’য়া ফেসবুক আইডি ও ২টি ভিডিও জ’ব্দ করা হয়।

জানা গেছে, এনএসআইর কর্মক’র্তা পরিচয়ে গত ৪ ডিসেম্বর একটি গাড়ি ভাড়া নেন আশরাফুল। ওই গাড়ি চালকের স্ত্রীকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে এনএসআইর অফিস সহকারী পদে চাকরি দেওয়ার কথা বলে এবং পরবর্তীতে প্র’তারণার মাধ্যমে মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নেন।

ভি’কটি’মের অ’ভিযোগের প্রেক্ষিতে গত ২৮ জানুয়ারি ভাটারা থা’নায় একটি মা’মলা দা’য়ের করা হয়। ডিবি সাইবার অ্যান্ড স্পেশাল ক্রা’ইম বিভাগের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (এডিসি) আশরাফউ’ল্লাহ বলেন, রাজধানীর ভাটারা থা’নায় দা’য়েরকৃত একটি মা’মলার ত’দন্তকালে ত’থ্য-প্রযুক্তির সহায়তায় প্রতারক আশরাফুল ই’সলাম দিপুকে গ্রে’ফতার করা হয়েছে।

বি’শ্বাস অর্জনের জন্য আশরাফুল স্বাক্ষরসহ এবং স্বাক্ষর ছাড়া নিয়োগের অফিস আ’দেশের কপি, বাংলাদেশ পু’লিশ সদরদপ্তরের লোগোসহ ছবি ভি’কটি’মের মোবাইলে পাঠান। এছাড়াও তিনি এনএসআইর অফিস আ’দেশ, সরকারি গেজেট তৈরি করে প্র’তারণার জন্য সরবরাহ করতেন।

পু’লিশের এই কর্মক’র্তা আরও বলেন, গ্রে’ফতার যুবক প্রাথমিক জি’জ্ঞাসাবা’দে লাখ লাখ টাকা প্র’তারণার কথা স্বী’কার করেছেন। তার ১০ দিনের রি’মান্ড চেয়ে আ’দালতে পাঠানো হয়, আ’দালত তিনদিনের রি’মান্ড মঞ্জুর করেছেন।

পোশাক তৈরিকারক প্রতিষ্ঠান নোমান গ্রপের ভাইস চেয়ারম্যান পদে নিয়োগ পাওয়ার খ’বর জানাতে রাজধানীর একটি পাঁচতারকা হোটেলে অনুষ্ঠানের আয়োজনকারী এই ব্যক্তির নাম আশরাফুল ইসলাম দিপু।

ফেসবুক লাইভে এসে তিনি আরো জানান, গুলশান ওয়েল ফেয়ার ক্লাবে বিপুল ভোটের ব্যবধানে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন। বিষয়টি ক’র্তৃপক্ষের নজরে এলে তারা থা’নায় জিডি করার পাশাপাশি ডিবির সাইবার বিভাগেও একটি অ’ভিযোগ দা’য়ের করেন।

নোমান গ্রুপের হেড অব প্রটোকল মাজহারুল ই’সলাম চৌধুরী বলেন, নোমান গ্রুপে ভাইস চেয়ারম্যান পদে আমরা কাউকে নিয়োগ দেইনি। আমাদের এই ধ’রনের কোনো প’রিকল্পনাও ছিল না। এমনকি আমরা জানিও না।

পরে অনুস’ন্ধান শুরু করে পু’লিশ। অ’ভিযুক্ত দিপুকে রাজধানী থেকে গ্রে’ফতার করা হয়। বেরিয়ে আসতে থাকে তার প্র’তারণার অ’ভিনব সব কৌ’শল।

পু’লিশ বলছে, মাত্র ১৪ বছর বয়সে ভোলার দাতা সংস্থার ত্রাণের অর্থ আ’ত্মসাতের মধ্য দিয়ে প্র’তারণায় হাতেখড়ি তার। এরপর আর পেছনে তাকাতে হয়নি তাকে। একের পর এক প্র’তারণার নিপুণ ছক রপ্ত করতে থাকেন তিনি।

দামি ব্র্যান্ডের ভাড়া করা গাড়িতে চলাফেরা করেন দিপু। গাড়ির চালকরাও তার প্র’তারণার হাত থেকে রেহাই পাননি। একজন গাড়িচালক বলেন, আমি ভাড়ায় একটি প্রাডো গাড়ি চালাই। উনি মাঝে মাঝে আমা’র গাড়ি নিয়ে যায়।

কিন্তু ভাড়া দেয় না। আমাকে বলে আমা’র বউকে তার কোম্পানিতে চাকরি দেবে। শুধু তাই নয় একটি সংস্থার পরিচালক পদে নিয়োগ পেয়েছেন মর্মে ভু’য়া গেজেট তৈরি করে অনেকের স’ঙ্গে প্র’তারণার ত’থ্যও পেয়েছে ডিবি।

মহামা’রিকালে অ’সহায় মানুষকে স’হায়তার নামে মানবিক টিম নামে একটি সংগঠন তৈরি করে প্রবাসীদের কাছ থেকে হা’তিয়ে নেন কয়েক লাখ টাকা। তার নামে ক

য়েক কোটি টাকা বরাদ্দের চেক দেখিয়ে করেন প্র’তারণা।

ডিবির সাইবার অ্যান্ড স্পেশাল ক্রা’ইম বিভাগের উপপু’লিশ কমিশনার মুহাম্ম’দ শরীফুল ই’সলাম বলেন, এত অল্প বয়সে তার যে অনলাইনে বিচরণ, অ’নলাইনের প্র’তারণার যে বুদ্ধি তার মা’থায় আসছে এটা আ’সলে হ’তবাক হওয়ার মতো। তার প্র’তারণা অনেক গ্র্যাজুয়েটকেও ছা’ড়িয়ে যাচ্ছে। বিস্তারিত জানতে রি’মান্ডের আবেদন করেছে পু’লিশ।